শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০৪:৪৮ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
শৈলকূপ উপজেলার ১১ নং আবাইপুর ইউনিয়নের ঢাকায় অবস্থানকারী দের নিয়ে গঠিত হলো লিজেন্ড এগারো নামে একটি ক্লাব বধ্যভূমি, একটি বটগাছ ও একজন রবিউল প্রানি সম্পদ মন্ত্রনালয় ও ঢাকা সিটি কর্পোরেশন কোন পথে কোরবানির আয়োজনে ? বৃষ্টির দিনেও রান্না করা খাবার নিয়ে অসহায় মানুষের পাশে রাজধানী মোহান্মদপুর ক্লাব সাধারণ সম্পাদক পদে সকলের পছন্দ হাফেজ মাওলানা মোঃ ইসমাইল হোসেন মানি ইজ নো প্রবল্যামের রাজনীতির জনক জিয়া, বঙ্গবন্ধু ছিলেন রাজনৈতিক কৃপণতার জনক অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে কারিগরি শিক্ষা: শিক্ষা উপমন্ত্রী নওফেল ইভিএম পেশীশক্তিকে প্রতিরোধে সহায়ক, দিনের ভোট দিনের জন্য মুলমন্ত্র ৩৩ নং ওয়ার্ড বিএনপির ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে সাধারণ সম্পাদক পদে আলোচনায় শেখ মোঃ জহিরুল ইসলাম অপু বিনামূল্যে প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা এবং ঔষধ বিতরণের ব্যবস্হা করেছে বাংলাদেশ ডেন্টাল হেলথ সোসাইটি কেন্দ্রীয় কমিটির

স্মরণসভায় নেতৃবৃন্দ ; ড. এমাজউদ্দীন মৃত্যু কীর্তিমান অভিভাবকের প্রস্থান

রিপোর্টারের নাম:
  • আপডেট টাইম বৃহস্পতিবার, ২৭ আগস্ট, ২০২০
  • ১০২ দেখা হয়েছে
মোঃ ইব্রাহিম হোসেনঃ প্রফেসর ড. এমাজউদ্দীন স্যারের মৃত্যুর মধ্যদিয়ে জাতি একজন কীর্তিমান মানুষকে হারিয়েছে জাতি। যিনি আজন্ম গণতন্ত্র, ন্যায়বিচার, সুশাসন ও দুর্ণীতিমুক্ত একটি স্বাধীন বাংলাদেশের জন্য লড়াই করে গেছেন। মূলত তিনি ছিলেন দেশের বরেণ্য ও কীর্তিমান একজন শিক্ষক ও অভিভাবক।
বৃহস্পতিবার (২৭ আগস্ট) নয়াপল্টনের যাদু মিয়া মিলনায়তনে প্রখ্যাত রাষ্ট্রবিজ্ঞানী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি, অধ্যাপক ড. এমাজউদ্দীন আহমদ স্মরণে ৩ দিনের কর্মসূচীর সমাপনি দিনে খতমে কুরআন, শিশুদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ ও তাঁর কর্মময় জীবন নিয়ে জাতীয় জনতা ফোরাম আয়োজিত আলোচনায় উপস্থিত আলোচকবৃন্দ এসব কথা বলেন।
সংগঠনের সভাপতি মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদারের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জাতীয় স্মরণমঞ্চের সভাপতি ও বিশিষ্ট রাজনীতিক প্রকৌশলী আ হ ম মনিরুজ্জামান দেওয়ান মানিক, প্রধান আলোচকের বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুঁইয়া, আলোচনায় অংশগ্রহন করেন বিশিষ্ট রাজনীতিক এম এম আমিনুর রহমান, এনডিপি মহাসচিব মহাসচিব মো. মঞ্জুর হোসেন ঈসা, বিশিষ্ট সাংবাদিক এহসানুল হক জসীম, সংগঠনের সদস্য সচিব ডা. শাকিলুর রহমান, সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক ফয়সাল আমিন, মাহি আল ফয়সাল প্রমুখ।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রকৌশলী আ হ ম মনিরুজ্জামান দেওয়ান মানিক বলেন, প্রফেসর ড. এমাজউদ্দিন আহমেদ দেশের সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলন সংগ্রামে শাসক শ্রেণির সকল প্রকার রক্তচক্ষুকে উপেক্ষা করে নির্ভয়ে দেশের পক্ষে ও দেশের মানুষের পক্ষে কথা বলেছেন। জনমত গড়তে হাতে কলম ধরেছেন। লিখেছেন মানুষের কথা, দেশের সমৃদ্ধির কথা, গণতন্ত্র ও সুশাসনের কথা। দুর্নীতি ও অন্যায়ের বিরুদ্ধে সদাসোচ্চার মানুষটি কোনদিন কোন অন্যায়ের কাছে মাথানত করেননি। সকল প্রকার গণতান্ত্রিক আন্দোলন সংগ্রামে জাতির পাশে থেকে সাহস জুগিয়েছেন, উদ্বুদ্ধ করেছেন।
প্রধান আলোচকের বক্তব্যে এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া বলেন, প্রফেসর এমাজউদ্দীন আহমেদ কোন দল বা গোষ্ঠির নয় বরং বাংলাদেশের প্রকৃত অভিভাবক ছিলেন। স্বাধীনতা ও গণতন্ত্রকামী মানুষের অভিভাবক ছিলেন। তিনি সত্যিকার অর্থেই একজন নিবেদিতপ্রাণ দেশ প্রেমিক ছিলেন। তিনি সবসময় চেয়েছেন বাংলাদেশ সত্যিকার অর্থে একটি উদার গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে পরিণত হোক, বাংলাদেশ সত্যিকার অর্থে একটা উন্নত রাষ্ট্রে পরিণত হোক, জনগণের মুক্তি হোক।
তিনি বলেন, এমাজউদ্দিন আহমেদ সারা জীবন ধরে বাংলাদেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব ও গণতন্ত্রের জন্য তার লেখনি অব্যাহত রেখেছিলেন। তার জীবনের সমস্ত ভাবনাজুড়ে ছিল দেশ, দেশের মানুষ, গণতন্ত্র অর্থনৈতিক মুক্তি ন্যায়বিচার ও সুশাসন।
এম এম আমিনুর রহমান বলেন, ১/১১ সরকারের রক্তচক্ষুকে উপেক্ষা করে যে কয়জন বুদ্ধিজীবী হাতে কলম ধরেছিলেন তাঁদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন প্রফেসর এমাজ উদ্দীন আহমেদ। দেশ দুর্নীতিমুক্ত হবে, মানুষের বাক- স্বাধীনতা প্রতিষ্ঠিত হবে, ন্যায্যতা ও ন্যায়বিচারের মানদণ্ডে পরিচালিত হবে প্রিয় বাংলাদেশ এমন হাজারো স্বপ্ন দেখতেন এই ক্ষণজন্মা মানুষটি।
মো. মঞ্জুর হোসেন ঈসা বলেন, বাংলাদেশের জন্য ড. এমাজউদ্দিন আহমেদ সত্যিকার অর্থে একজন তারকা শিক্ষাবিদ ছিলেন। তিনি ছিলেন সূর্যের মতো আলোকিত একজন মানুষ। সেই আলোতে দেশবাসী আলোকিত হতো।
এহসানুল হক জসীম বলেন, ড. এমাজউদ্দিন আহমেদকে যথাযথ সম্মান ও মূল্যায়ন করা হয় নাই। তিনি যে রাজনৈতিক আদর্শে বিশ্বাস করতেন দীর্ঘ দিন তারা ক্ষমতায় থাকলেও তারা তাকে যথাযথ মর্যদা প্রদানে ব্যর্থ হয়।
সভাপতির বক্তব্যে মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার বলেন, ড. এমাজউদ্দিন আহমেদ দলকানা কোন বুদ্ধিজীবী ছিলেন না। তিনি সদা সত্য বলতেন এবং সত্যের পক্ষে কলম হাতে লড়াই করতেন। সত্যের পক্ষে কথা বলতে তিনি কখনোই কার্পণ্য করতেন না। এই জন্য তিনি বিএনপিকে জামায়াতের সঙ্গ ত্যাগ করার জন্য বিভিন্ন সময় পরামর্শ দিতেও কুণ্ঠাবোধ করেননি।

শেয়ার করুন

এই ধরনের আরও খবর...

Dairy and pen distribution

themesba-lates1749691102