May 19, 2024, 4:57 pm
শিরোনামঃ
শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে মৎস্যজীবী লীগের উদ্যোগে আলোচনা সভা বিচার ব্যবস্তার সুচনার ইতিহাস জানিনা, বিতর্কের শেষ কোথায় ? বুঝতে পারছি না বঙ্গ কণ্যার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন ও বাংলার মাটি কে বুকে ধারন, ইতিহাসের অংশ ব্রাহ্মণবাড়িয়া মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি পাঠাগারের কমিটি গঠন জহির সভাপতি ও লিটন সাধারণ সম্পাদক গাজায় নিজেদের গোলার আঘাতে পাঁচ ইসরায়েলি সেনা নিহত তালের শাঁস খেলে যেসব উপকার হয় ঢাকা শহরে কোনো ব্যাটারিচালিত রিকশা চলবে না: ওবায়দুল কাদের বিশ্বাস পুনর্নির্মাণের জন্য আমি বাংলাদেশ সফর করছি: ডোনাল্ড লু ভারতবর্ষে হিন্দু মুসলমানের রাজনীতি হয়,মহাত্মা গান্ধী সকল ধর্মের রাজনীতি নাই গুলিস্তান-মিরপুরের কাপড় পাকিস্তানের বলে বিক্রি করেন তনি!

স্বর্ণালংকার এর জন্য আফরোজাকে হত্যা হত্যা করা হয়

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট সময় : Thursday, March 17, 2022
  • 169 Time View

মোহাম্মদ ইরফান

রাজধানীর বাড্ডায় আফরোজা সুলতানা হত্যার রহস্য উন্মোচন করেছে মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ। ডিবি জানায়, হৃদয় জুয়া খেলতেন। বড় সংসার তার ওপর তিন মাসের বাসা ভাড়া বাকি। চরম অভাবে পড়ে যান তিনি। এক পর্যায়ে চিন্তা করেন বেশ কিছু টাকা হলে দূরে কোথাও গিয়ে অন্য ব্যবসা করে সংসার চালাবেন। হৃদয় ধারণা করেন, আফরোজার কাছে অনেক টাকা ও স্বর্ণালংকার আছে। কারণ গাড়ি দিয়ে আফরোজা সুলতানা বিভিন্ন ব্যাংকে টাকা জমা দিতেন। এতে তার ধারণা হয় তাকে হত্যা করে বাসা থেকে টাকা ও স্বর্ণালংকার নিতে পারবেন। এ পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে এ হত্যাকাণ্ড ঘটনা হৃদয়।

মঙ্গলবার রাতে অভিযুক্ত চালক মো. হৃদয় বেপারীকে গ্রেফতার করে ডিবি।

বুধবার (১৬ মার্চ) দুপুরে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলন এসব তথ্য জানান ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা বিভাগের (ডিবি) অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (প্রধান) এ কে এম হাফিজ আক্তার।

তিনি বলেন, আফরোজা গুলশান-২ এর সেভেন সার্কেল বাংলাদেশ লিমিটেড নামে একটি প্রতিষ্ঠানের কর্মরত ছিলেন। গত ১৩ মার্চ বাড্ডার গুদারাঘাটের বাসায় গলা কেটে আফরোজা সুলতানাকে হত্যা করা হয়েছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে ঘটনাস্থলে সিআইডি, পিবিআই, থানা পুলিশ, গোয়েন্দা পুলিশসহ বিভিন্ন সংস্থা একত্রিত হয়ে তদন্ত শুরু করে। থানা পুলিশের পাশাপাশি গোয়েন্দা (গুলশান) বিভাগের গুলশান জোনাল টিমও এ ঘটনার তদন্ত শুরু করে। তদন্ত চলাকালীন তথ্য প্রযুক্তি ও গোয়েন্দা সূত্রে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া যায়। সেই তথ্যের ভিত্তিতে হত্যাকারীকে শনাক্ত করতে সক্ষম হয় ডিবি। পরে রাজধানীর মধ্য বাড্ডা এলাকায় বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে হৃদয়কে গ্রেপ্তার করা হয়।

এ কে এম হাফিজ আক্তার বলেন,গ্রেফতার মো. হৃদয় ৫ম শ্রেণি পর্যন্ত লেখাপড়া করেন। এরপর থেকে তিনি নানা কাজে যুক্ত হন। ২০০৫ সালে ড্রাইভিং শেখে বিভিন্ন জায়গায় ড্রাইভার হিসেবে কাজ করেন তিনি। সর্বশেষ ২০১৫ সালে সেভেন সার্কেল বাংলাদেশ লিমিটেডের ড্রাইভার হিসেবে যোগ দেন। সে প্রতিষ্ঠানে চাকরির সুবাদে আফরোজা সুলতানা তাকে নিয়োগ দেন।

ডিবি জানায়, গ্রেফতারের সময় তার কাছ থেকে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ছুরি ও চোরাই স্বর্ণালংকার উদ্ধার করেছে ডিবি। তাকে আফরোজা হত্যা মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে রিমান্ডের জন্য আদালতে পাঠাবে ডিবি।

শেয়ার করুন
More News Of This Category

Dairy and pen distribution

ডিজাইনঃ নাগরিক আইটি ডটকম
themesba-lates1749691102