বৃহস্পতিবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২২, ১২:১৯ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
২৬ শর্তে বিএনপিকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশের অনুমতি বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশ থেকে সঠিক রাজনৈতিক নির্দেশনা নাই অবিভক্ত ঢাকার নির্বাচিত মেয়র মোহাম্মদ হানিফ এর মৃত্যু বার্ষিকীতে ব্যথিত হয়েছি বাসাপ এর জমকালো ৩৫ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত ব্রাজিলের ৪০০ জার্সি বিতরণ করলেন ঝাল মুড়ি বিক্রেতা মোহাম্মদ জাবেদ বিএনপির সঙ্গে জোটের প্রশ্নই আসে না: রওশন এরশাদ মেয়র হানিফকে হারিয়ে, ঢাকা এখন রাজনৈতিক অন্ধকারে বিশ্বকাপে নতুন ইতিহাস গড়লেন মেসি সিমিন হোসেন রিমি আ.লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মনোনীত হওয়ায় শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন আবু সাঈদ তালুকদার রিচার্লিসনের জোড়া গোল, দাপুটে জয় ব্রাজিলের

সাহস ও শক্তি সঞ্চয় করে মাঠে নামার আহ্বান আব্বাসের

রিপোর্টারের নাম:
  • আপডেট টাইম শনিবার, ৬ মার্চ, ২০২১
  • ১৫০ দেখা হয়েছে

মোঃ ইব্রাহিম হোসেনঃ বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেছেন, আমরা প্রতিবাদ সভা করছি, কারণ আমরা আমাদের কথা বলার অধিকারটা চাই। আমরা দেশের স্বাধীনতা চাই। আমরা দেশের মানুষের স্বাভাবিক কথা বলার গ্যারান্টি চাই। আমরা স্বাভাবিক মৃত্যুর গ্যারান্টি চাই। কিন্তু, আজকে চারিদিকে কত অত্যাচার, নির্যাতন ও নিপীড়ন। এত ভয় কিসের, কাকে এত ভয়?

মির্জা আব্বাস বলেন, এভাবে চলবে না। আপনারা সাহস করে এখানে বসে আছেন, আপনাদের আমি ধন্যবাদ জানাই। আমাদের আরও সাহস ও শক্তি সঞ্চয় করতে হবে। এই স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে। আমরা একজন একজন করে কোটি জনগণ একসঙ্গে হয়ে একদিন আমরা এই স্বৈরাচার সরকারের পতন ঘটাব।

আজ ৬ মার্চ ২০২১ রোজ  শনিবার ‘লেখক মুশতাক আহমেদ ও সাংবাদিক বোরহান উদ্দিন মুজাক্কির হত্যার প্রতিবাদে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দলের কর্মসূচিতে মির্জা আব্বাস  এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, যাঁকে ভয় পাবেন তাঁকে এরই মধ্যে গ্রেপ্তার করে দেশে আটকে রেখেছেন। যাঁকে ভয় পাচ্ছেন, সেই তারেক রহমান প্রবাসে আছেন। যাঁকে ভয় পাচ্ছেন, শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান, উনি আমাদের মধ্যে নেই। তবু এত ভয় কেন আপনাদের? আমি বুঝতে পারি না। এত ভয়, কী জন্য এত ভয়?

মির্জা আব্বাস  বলেন, জিয়াউর রহমান যদি বেঁচে থাকতেন, তাহলে দেশের চেহারা এমন হতো না। দেশনেত্রী খালেদা জিয়া যদি বাইরে থাকতেন, তাহলেও দেশের চেহারা এমন থাকত না। আমাদের বিশ্বাস দেশনায়ক তারেক রহমান যখন দেশে ফিরবেন, তখনও দেশের চেহারা এর চেয়ে অনেক ভালো থাকবে ইনশাআল্লাহ।

বিএনপিনেতা আরও বলেন, এ দেশে গণতন্ত্র ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছিল। শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান বহুদলীয় গণতন্ত্র চালু করেছেন এবং দেশনেত্রী খালেদা জিয়া সংবাদপত্র ও মানুষের কথা বলার অধিকার ফিরিয়ে দিয়েছেন। সংবাদপত্রের স্বাধীনতা দিয়েছে এই বিএনপি। যার ফলে আজকে হাজার হাজার সংবাদপত্র, হাজার হাজার পত্রিকা। আজকে এই সরকারের আমলে শত-শত সাংবাদিক, লেখক ও কলামিস্টকে জেলে যেতে হচ্ছে। আমরা কোনো কথাই বলতে পারব না। এভাবে চলবে না, চলতে পারে না।

স্বেচ্ছাসেবক দলের আজকের কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে কদম ফোয়ারা, তোপখানা রোডে ও সচিবালয়ের সামনে কঠোর নিরাপত্তার বলয় গড়ে তোলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এ সময় পথচারীদের তল্লাশি করে দেখা গেছে। কর্মসূচিতে যোগ দিতে আসা নেতাকর্মীদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা বাধা দিয়েছেন বলেও প্রতিবাদ সমাবেশ থেকে অভিযোগ করেন নেতারা।

স্বেচ্ছাসেবক দলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমানেরর সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদির ভুইয়া জুয়েলের সঞ্চালনায় প্রতিবাদ কর্মসূচিতে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক মীর সরাফত আলী সপু, স্বেচ্ছাসবেকল দলের সিনিয়র সহ-সভাপতি গোলাম সরোয়ার, সহ-দপ্তর সস্পাদক নাজমুল হাসান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুন

এই ধরনের আরও খবর...

Dairy and pen distribution

themesba-lates1749691102