শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০৬:০২ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
শৈলকূপ উপজেলার ১১ নং আবাইপুর ইউনিয়নের ঢাকায় অবস্থানকারী দের নিয়ে গঠিত হলো লিজেন্ড এগারো নামে একটি ক্লাব বধ্যভূমি, একটি বটগাছ ও একজন রবিউল প্রানি সম্পদ মন্ত্রনালয় ও ঢাকা সিটি কর্পোরেশন কোন পথে কোরবানির আয়োজনে ? বৃষ্টির দিনেও রান্না করা খাবার নিয়ে অসহায় মানুষের পাশে রাজধানী মোহান্মদপুর ক্লাব সাধারণ সম্পাদক পদে সকলের পছন্দ হাফেজ মাওলানা মোঃ ইসমাইল হোসেন মানি ইজ নো প্রবল্যামের রাজনীতির জনক জিয়া, বঙ্গবন্ধু ছিলেন রাজনৈতিক কৃপণতার জনক অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে কারিগরি শিক্ষা: শিক্ষা উপমন্ত্রী নওফেল ইভিএম পেশীশক্তিকে প্রতিরোধে সহায়ক, দিনের ভোট দিনের জন্য মুলমন্ত্র ৩৩ নং ওয়ার্ড বিএনপির ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে সাধারণ সম্পাদক পদে আলোচনায় শেখ মোঃ জহিরুল ইসলাম অপু বিনামূল্যে প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা এবং ঔষধ বিতরণের ব্যবস্হা করেছে বাংলাদেশ ডেন্টাল হেলথ সোসাইটি কেন্দ্রীয় কমিটির

রক্তের সন্ধানে বাংলাদেশ’র উদ্যোগে স্বেচ্ছাসেবী ও রক্তদাতাদের নিয়ে আলোচনা সভা

রিপোর্টারের নাম:
  • আপডেট টাইম রবিবার, ১ নভেম্বর, ২০২০
  • ২২৫ দেখা হয়েছে

মোঃ ইব্রাহিম হোসেনঃ ভালোবেসে রক্তদান, আমার রক্তে বাঁচুক প্রাণ।এই স্লোগান কে সামনে রেখে, রক্তের সন্ধানে বাংলাদেশ এর উদ্যোগে স্বেচ্ছাসেবী ও রক্তদাতাদের নিয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

১ নভেম্বর ২০২০ রোজ রবিবার রাজধানী আদাবর থানার প্রিন্স কিচেন ২য় তলায় এ স্বেচ্ছাসেবী ও রক্তদাতাদের নিয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এ সময় ঊপস্থিত ছিলেন, সংগঠনের প্রধান উপদেষ্টা ও আদাবর থানা যুবলীগের সংগ্রামী যুগ্ন-আহবায়ক আলমগীর হোসন, হাসানুজ্জামান হিটু, মেডিসিন ও ব্যথা বিশেষজ্ঞ ডা: মনোয়ারুল আলম এমবিবিএস, মুফতি ফরহাদুল ইসলাম বুলবুলী, খতিব বায়তুস সালাম জামে মসজিদ, মো: পলাশ চৌধুরী সভাপতি নবাবগঞ্জ উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগ, মো: ওবায়দুর রহমান সদস্য বাংলাদেশ কৃষক লীগ, খগেন্দ্র বিশ্বাস খোকন সাবেক ছাত্রনেতা।

আরো উপস্থিত ছিলেন সংগঠন এর প্রতিষ্ঠাতা অন্তর হোসেন সাফায়েত ও সংগঠনের সকল স্বেচ্ছাসেবী বৃন্দ।

অনুষ্ঠানে বক্তরা বলেন, মুমূর্ষু রোগীর জীবন রক্ষার জন্য গুরুত্বপূর্ণ হলো রক্তদান। স্বেচ্ছা রক্তদাতা দেশের জন্যে গর্বের। যারা বার বার রক্তদানের মতো মহৎ কাজ করেন, প্রকৃত অর্থে তারা মহামানব। স্বেচ্ছায় রক্তদান অনেক জীবন বাঁচায়। কোনো মানুষের পক্ষে এ দানের প্রতিদান দেওয়া সম্ভব নয়। দেশে প্রয়োজনের তুলনায় রক্তাদাতার সংখ্যা অনেক কম। এজন্য সচেতনতা জরুরি। একজন ব্যক্তির প্রয়োজনে রক্ত দেয়া একটি মহৎ কাজ। সচেতনতার অভাবে এবং কিছু ভুল ধারণার কারণে আমরা অনেকেই রক্তদানের মতো মহৎ কাজ এবং দুর্লভ সুযোগ থেকে নিজেদের বঞ্চিত করছি প্রতিনিয়ত। অথচ সুস্থ্য প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ হিসেবে আমরা প্রতি ১২০ দিন পর কোন রকম শারীরিক ক্ষতি ছাড়াই রক্ত দিয়ে একজন মানুষের জীবন বাঁচাতে ভূমিকা রাখতে পারি। নিয়মিত ব্যবধানে ভেঙ্গে যাওয়া রক্তকণিকা আমাদের শরীরে কোন কাজে আসে না অথচ এই রক্ত অন্যকে দিলে তার জন্য তা হতে পারে অমূল্য।

সংগঠনের উপদেষ্টারা আরো বলেন আপনাদের এই মহতি উদ্যোগ তরুন সমাজকে মাদকমুক্ত রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। আপনারা রক্ত দিয়ে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়া, আমরা আপনাদের পাশে আছি। নিয়মিত রক্ত দিন মানব সেবায় এগিয়ে আসুন।

শেয়ার করুন

এই ধরনের আরও খবর...

Dairy and pen distribution

themesba-lates1749691102