শনিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২২, ০২:১৬ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
রিচার্লিসনের জোড়া গোল, দাপুটে জয় ব্রাজিলের বিশ্ব ফুটবলের বিস্ময় সৌদি, এশিয়া নিয়ে আমরা গর্ব করতেই পারি মাহাতি হারেনি , হেরেছে সভ্যতা নিষ্ঠা, মালয় উন্নয়নে চকমক, জাতি মাদকাসক্ত মনে হয় উন্নয়নের বিনিময়ে নৌকায় ভোট চাইলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গোয়ালন্দ উপজেলা কৃষক লীগের সভাপতি হাবিব, সাধারণ সম্পাদক শামীম মৃধা গোয়ালন্দ উপজেলা কৃষক লীগের সভাপতি হাবিব, সাধারণ সম্পাদক শামীম মৃধা রাজধানী মোহাম্মদপুরে জালাল উদ্দিন এর স্মরণে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল জার্মানিকে হারিয়ে বিশ্বকাপের দ্বিতীয় অঘটন জাপানের মাহাতি হারেনি , হেরেছে সভ্যতা নিষ্ঠা, মালয় উন্নয়নে চকমক,জাতি মাদকাসক্ত মনে হয় ওয়ালিউল্লাহ মাষ্টারের ৬২তম জন্মবার্ষিকীতে বিনম্র শ্রদ্ধাঞ্জলি

মিনু ক্ষমা না চাইলে আ.লীগের অনেক কিছু করার আছে: নানকের হুঁশিয়ারী

রিপোর্টারের নাম:
  • আপডেট টাইম সোমবার, ৮ মার্চ, ২০২১
  • ১০৭ দেখা হয়েছে

মোঃ ইব্রাহিম হোসেনঃ রাজশাহী বিভাগীয় সমাবেশে দেওয়া একটি বক্তব্যকে কেন্দ্র করে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনুকে জাতির সামনে ক্ষমা চাইতে বলেছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী এ্যাড. জাহাঙ্গীর কবির নানক।

তিনি হুঁশিয়ারী দিয়ে বলেছেন, ‘মিনুর বক্তব্য যদি বিএনপি দলীয় বক্তব্য হয় তাহলে আওয়ামী লীগের অনেক কিছু বলার আছে, অনেক কিছু করার আছে। সরকারকে অনুরোধ করব তাকে আইনের আওতায় এনে এ বক্তব্যের উৎস কি তা খতিয়ে দেখা হোক।’

রোববার (৭ মার্চ) দুপুরে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উপলক্ষে কৃষক লীগ আয়োজিত ‘কৃষক সমাবেশ ও আলোচনা সভায়’ তিনি এসব কথা বলেন।

‘আজ রাত, কাল আর সকাল নাও হতে পারে। ৭৫ মনে নাই?’ রাজশাহী বিভাগীয় সমাবেশে মিনুর এ বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় নানক বলেন, মুজিব প্রেমি জনগণ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বন্দী গণতন্ত্রকে যেভাবে মুক্তি করেছে, তেমনিভাবে ষড়যন্ত্রের আস্তানায় আঘাত হেনে ওদেরকে বঙ্গোপসাগরে নিক্ষেপ করা হবে।

বিএনপির দিকে ইঙ্গিত করে আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, ৭৫ সালের ১৫ আগস্টের পরে সেই ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণকে নিষিদ্ধ করা হলো। শুধু নিষিদ্ধই নয়, আমরা যারা মুজিব প্রেমি ৭ ই মার্চের ভাষণ বাঁচানোর চেষ্টা করেছি আমাদেরকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। শুধু গ্রেপ্তারি ক্ষান্ত হয়নি, তারা বাজার থাকা ৭ মার্চ ভাষণের সকল কিছু মুছে দিতে চেয়েছিল। আজ তারাই ৭ মার্চের ভাষণ পালন করছে। তাদের এসবই দেশ-বিদেশের ষড়যন্ত্রের অংশ। শান্তিপ্রিয় বাঙালি কোন ধরনের ষড়যন্ত্র সফল হতে দিবে না বলেও উল্লেখ করেন নানক।

আওয়ামী লীগের সকল নেতাকর্মীদের আহবান করে তিনি বলেন, দেশ-বিদেশের ষড়যন্ত্র এবং চক্রান্তকারীরা বসে নেই। যখনই বাংলাদেশ সফল রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ উন্নয়নশীল দেশে উপনীত হয়েছে তখন অনেকেরই গাত্রদাহ শুরু হয়ে গেছে। যখন বাংলাদেশের মানুষ তাদের মৌলিক অধিকার বুঝে পেয়েছে, তখন সেই বাংলাদেশকে আবার পেছনের দিকে নিয়ে যাওয়ার জন্য ওরা আবার ষড়যন্ত্র শুরু করেছে। ওদের ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করার জন্য আমাদের যখনই ডাক দেয়া হবে তখনই যেন লক্ষ লক্ষ নেতাকর্মী রাস্তায় নেমে আসে, সে প্রস্তুতি আমাদের থাকতে হবে।

অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাসিম বলেন, বাংলার মানুষ সরকার পতনের তর্জন-গর্জন জনগণ আর বিশ্বাস করে না। জনগণ বিএনপির ওপর থেকে আস্থা হারিয়েছে। জনগণ দেশের স্থিতিশীল, শান্তি-শৃঙ্খলায় বিশ্বাসী। বিএনপির আন্দোলনের নামে অশুভ তৎপরতার বিরুদ্ধে সোচ্চার জনগণ। তবুও দেশ-বিদেশের যে ধরনের ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে তার জন্য আমাদের সকলকে প্রস্তুত থাকতে হবে।

কৃষক লীগের সভাপতি কৃষিবিদ সমীর চন্দের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য রাখেন, আওয়ামী লীগের সংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম, কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলি, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক আফজালুর রহমান বাবু। সভা সঞ্চালনা করেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক উম্মে কুলসুম স্মৃতি।

শেয়ার করুন

এই ধরনের আরও খবর...

Dairy and pen distribution

themesba-lates1749691102