শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০৬:১৯ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
শৈলকূপ উপজেলার ১১ নং আবাইপুর ইউনিয়নের ঢাকায় অবস্থানকারী দের নিয়ে গঠিত হলো লিজেন্ড এগারো নামে একটি ক্লাব বধ্যভূমি, একটি বটগাছ ও একজন রবিউল প্রানি সম্পদ মন্ত্রনালয় ও ঢাকা সিটি কর্পোরেশন কোন পথে কোরবানির আয়োজনে ? বৃষ্টির দিনেও রান্না করা খাবার নিয়ে অসহায় মানুষের পাশে রাজধানী মোহান্মদপুর ক্লাব সাধারণ সম্পাদক পদে সকলের পছন্দ হাফেজ মাওলানা মোঃ ইসমাইল হোসেন মানি ইজ নো প্রবল্যামের রাজনীতির জনক জিয়া, বঙ্গবন্ধু ছিলেন রাজনৈতিক কৃপণতার জনক অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে কারিগরি শিক্ষা: শিক্ষা উপমন্ত্রী নওফেল ইভিএম পেশীশক্তিকে প্রতিরোধে সহায়ক, দিনের ভোট দিনের জন্য মুলমন্ত্র ৩৩ নং ওয়ার্ড বিএনপির ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে সাধারণ সম্পাদক পদে আলোচনায় শেখ মোঃ জহিরুল ইসলাম অপু বিনামূল্যে প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা এবং ঔষধ বিতরণের ব্যবস্হা করেছে বাংলাদেশ ডেন্টাল হেলথ সোসাইটি কেন্দ্রীয় কমিটির

মানুষের জীবনটা একটা নাটকের অংশ,স্বভাব বিস্তারে

রিপোর্টারের নাম:
  • আপডেট টাইম বুধবার, ২৫ নভেম্বর, ২০২০
  • ১৭২ দেখা হয়েছে

জনাব রবিউল আলমঃ বাঙালি সংস্কৃতির বিস্তারে রুচির পরিবর্তনে আমি বিস্মিত। স্টার জলসার শ্রীময়ী নাকি, না দেখতে পারায় বাংলাদেশ নিরব বিপ্লব হচ্ছে। বৌ,শাশুড়ীর ঝগড়া, পরকীয়া, অশালীন ভাষায় মাকে আক্রমণ নিয়ে শ্রীময়ী নাটকের রচনা, বাঙালীকে কি করে এতটা আকৃষ্ট করতে পারে ? বাঙালীর স্বভাব চরিত্রে ও সংস্কৃতি সাথে আমি কোন মিল খুঁজে পাই না। না এই নাটকে চরিত্র ও সামাজিক বন্ধন খুঁজে পাই। প্রতিটি সংসারেই প্রতিবন্দকতা ও বিৎছেদ পরিলহ্মিত হচ্ছে,তার পরেও ইন্ডিয়ান বলে ? রবিন্দ্রনাথ, নজরুল , শরৎ,বঙ্কিম, লালনের দেশে কি হচ্ছে ? বাঙালীর রুচির কি পরিবর্তন হচ্ছে ? নবাব সেরাজদ্দৌলা, দেবদাশ চলচ্চিত্র আমাদের অহংকার। বোম্বাই, দিল্লি কলকাতা সহ ১১ বার শরৎচন্দ্রে দেবদাশ চিত্রায়ীত হয়েছে, বাংলাদেশের কবরী, পার্বতী ও বুলবুল আহমদ দেবদাশ চরিত্র করার মত অভিনয় ছিলো অবিস্মরণীয়। হুমায়ুন আহমেদের বহুব্রীহি, এইসব দিন-রাত্রী ও কোথাও কেউ নাই, বাকের ভাই হ্ম্যাত আসাদুজ্জামান নূর ছিলো ইতিহাসের অংশ। ভারত-বাংলাদেশ সহ বিহ্মোব হয়েছে। নাট্যকারের বাড়ীতে আক্রমণ হয়েছে, মৃত্যুদণ্ড রহিত করনের জন্য। আমার বিশ্বাস ভারতে বাংলাদেশের টেলিভিশন চ্যানেল প্রবেশাধীকার থাকলে। সালাউদ্দিন লাভলু সহ একাধিক তরুন নাট্যকারের নাটক ভারতের বাঙালী চরিত্রের ও রুচির পরিবর্তন ঘটাতে পারতো। আসামে কিছুদিন অবস্থানে ইউটিউবে বাংলাদেশের নাটক দেখার হিরিক দেখেছি। মানুষের জীবনটাই একটা নাটকের অংশ মনে হয়েছে। প্রতিদিন আমাদের চারিপাশে ঘটে যাওয়া ঘটনাই নাটক। ধর্ষণ, ধর্ষক, দুর্নীতি, রাজনীতি, জীবনমানের বহিঃপ্রকাশ ঘটে নাটক, চলচ্চিত্রের মাধ্যমে। জীবনধারণ, চরিত্রগঠন, জাতির ইতিহাস ঐতিহ্য রহ্মার জন্য লেখক, সাহিত্যিক, চলচ্চিত্রকার নাট্যকার,কবি, গীতিকারদের অবদান আমরা অস্বীকার করতে পারিনা। নাটক, চলচ্চিত্র ও অপসংস্কৃতিকেও অস্বীকার করতে পারবোনা। একজন সন্তান মাকে যখন দুষ চরিতা,ব্যাবিচারী বলে, হউক না নাটক। এর প্রভাব আমাদের সমাজে, জাতিগঠনে কিছুটা হলেও প্রতিবন্দকতা সৃষ্টি করে। সংস্কৃতি, রাজনীতির সহায়ক বলা হয়। অপসংস্কৃতি বিনষ্টকারী। রাজনীতির মাধ্যমে বিনষ্ট আবিস্কার করতে চাইলে প্রতিরোধ করবে কে ? স্টার প্লাস, স্টার জলসা, জিটিবি সহ ভারতীয় চ্যানেল, অনেক হয়েছে, অর্থও অনেক হয়েছে। এখনতো থামুন। জাতি আপনাদের কাছে অনেক কিছু আশা করে। জাতির প্রতি আপনাদের দায়ীত্ব অনেক। কাল্পনিক চরিত্র বাদ দিয়ে বাস্তবে আসুন।

লেখকঃ বাংলাদেশ মাংস ব্যবসায়ী সমিতির মহাসচিব ও রাজধানী মোহাম্মদপুর থানার ৩৪ নং ওয়ার্ড আওয়ামলী লীগের সভাপতি জনাব রবিউল আলম।

শেয়ার করুন

এই ধরনের আরও খবর...

Dairy and pen distribution

themesba-lates1749691102