বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২, ০১:১৬ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
মিরপুরে বঙ্গবন্ধুর শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে দোয়া মাহফিল বিমান বন্দর থানায় বঙ্গবন্ধুর শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে দোয়া মাহফিল ২৯ নং ওয়ার্ডে বঙ্গবন্ধুর শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে দোয়া মাহফিল মোহাম্মদপুরে বঙ্গবন্ধুর শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে দোয়া মাহফিল ৩২ নং ওয়ার্ডে বঙ্গবন্ধুর শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে দোয়া মাহফিল ৩১ নং ওয়ার্ডে বঙ্গবন্ধুর শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে দোয়া মাহফিল বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে কৃষক লীগের শ্রদ্ধা নিবেদন বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের শ্রদ্ধা মোহাম্মদপুরে বিল্লাল হোসেন’কে প্রাণ নাশের হুমকি, থানায় জিডি স্মৃতির পাতায় ১৫ আগস্ট, আজ জাতীয় শোক দিবশ, বিনম্র শ্রদ্ধা শহিদের প্রতি

মানি ইজ নো প্রবল্যামের রাজনীতির জনক জিয়া, বঙ্গবন্ধু ছিলেন রাজনৈতিক কৃপণতার জনক

রিপোর্টারের নাম:
  • আপডেট টাইম শুক্রবার, ১ জুলাই, ২০২২
  • ৯৬ দেখা হয়েছে

রবিউল আলম

৫০ টাকা বাচাতে নারায়নগঞ্জে সাইকেল চড়ে কাজের সমাধান করেছিলেন বঙ্গবন্ধু। মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানীর হাতে টাকাটা ফেরত দিতেই বিস্ময়ে চেয়েছিলেন। জনগণের টাকার স্বচ্ছতার নাম রাজনীতি,বার বার প্রমান করেছিলেন বলেই জাতির পিতার আসনে বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমান। পিতাকে হত্যার পরে মেজর জিয়া বিশ্ব ঘাতকের সঙ্গে বিশ্ব ব্যাংকের ঋণের টাকায় শ্লোগান তুলেছিলেন, মানি ইজ নো প্রবল্যামের রাজনীতির। এলাকার খুচরো মাস্তান থেকে চেয়ারম্যান, মেম্বার এমনকি স্কুল কলেজের কমিটির সভাপতি/সম্পাদক ক্রয় বিক্রয় হতো। বাংলাদেশের রাজনৈতিক বিক্রয় কেন্দ্র গড়ে তুলেছিলেন জিয়া। ডান, বাম, গুপ্ত হত্যার চীনপন্থীদের অভয়ারণ্য আবিস্কার করেছিলেন। জনগণের টাকার বিলাসিতার রাজনীতিতে পরিনত করেন। পরিনাম আপনাদের সবারই জানা। জনগণের টাকায় অতিরঞ্জিত বিলাসিতা বেশীদিন টিকিয়ে রাখা যায় না। বিএনপি জামাত ও পারেনি বিলাসিতার রাজনীতিকে টিকিয়ে রাখতে। আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে আমি সেই বিলাসিতার রাজনীতি লক্ষ্য করছি,সম্মেলনকে কেন্দ্র করে। ইউনিট, ওয়ার্ড ও থানা সম্মেলনেও বিশাল বিশাল প্যাণ্ডেল, নাচে গানে ভরপুর। টাকার অংক লিখে বিব্রত করতে চাই না। এই টাকা আসে কোত্থেকে ? মজিব সৈনিকেরা চিকিৎসার অভাবে মরে। কন্টেকটার, চেয়ারম্যান কাউন্সিলর’রা বিনে স্বার্থে টাকাদেয় না। হাওলাদ করে ঘি খাওয়ার রাজনীতি আওয়ামীলীগের হতে পারে না। জাতির জনক আমাদেরকে পাটি বিছিয়ে, উঠন বৈঠকের মাধ্যমে রাজনীতি শিখিয়েছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিদ্যুৎতের লালবাতি, পানির কল বন্দ করে ব্রাশ করা শিখাচ্ছেন। সেই দল আওয়ামীলীগের ইউনিট সম্মেলনে বিলাসিতা দেখে বিশ্বাস করতে কষ্ট হচ্ছে। জীবনের শেষ রাজনীতির শেষ কোথায় জানিনা, আওয়ামীলীগকে বঙ্গবন্ধুর ও শেখ হাসিনার রাজনীতিতে পরিপূর্ণ ফিরিয়ে আনতেও পারবোনা। তবে মনে করিয়ে দিতে পারবো, চাকচিক্যের রাজনীতি, সম্মেলনের রাজনীতি ভোট জন্য নয়। ভোটের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের রাজনীতি, বণ্যাদুগতদের পাশে থাকার রাজনীতি। ৭০ নির্বাচনে ভোলার নির্বাচন স্থগীত করে দুর্গত মানুষের পাশে ছিলেন আওয়ামীলীগ। সম্মেলন উঠন বৈঠকের মাধ্যমে ও হয়, সিলেটের বন্যা দুর্গতদের পাশে অর্থ ছাড়া হবে না।
লেখকঃ বাংলাদেশ মাংস ব্যবসায়ী সমিতির মহাসচিব ও রাজধানী মোহাম্মদপুর থানার ৩৪ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি জনাব রবিউল আলম।

শেয়ার করুন

এই ধরনের আরও খবর...

Dairy and pen distribution

themesba-lates1749691102