May 19, 2024, 5:29 pm
শিরোনামঃ
শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে মৎস্যজীবী লীগের উদ্যোগে আলোচনা সভা বিচার ব্যবস্তার সুচনার ইতিহাস জানিনা, বিতর্কের শেষ কোথায় ? বুঝতে পারছি না বঙ্গ কণ্যার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন ও বাংলার মাটি কে বুকে ধারন, ইতিহাসের অংশ ব্রাহ্মণবাড়িয়া মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি পাঠাগারের কমিটি গঠন জহির সভাপতি ও লিটন সাধারণ সম্পাদক গাজায় নিজেদের গোলার আঘাতে পাঁচ ইসরায়েলি সেনা নিহত তালের শাঁস খেলে যেসব উপকার হয় ঢাকা শহরে কোনো ব্যাটারিচালিত রিকশা চলবে না: ওবায়দুল কাদের বিশ্বাস পুনর্নির্মাণের জন্য আমি বাংলাদেশ সফর করছি: ডোনাল্ড লু ভারতবর্ষে হিন্দু মুসলমানের রাজনীতি হয়,মহাত্মা গান্ধী সকল ধর্মের রাজনীতি নাই গুলিস্তান-মিরপুরের কাপড় পাকিস্তানের বলে বিক্রি করেন তনি!

ভোটার উপস্থিতি করার দায়ীত্ব কি শুধু সরকারের ? না-কি সরকারকে নামানোর জন্য বিরোধী মতের ?

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট সময় : Monday, October 11, 2021
  • 343 Time View

জনাব রবিউল আলমঃ

রাজনৈতিক ইতিহাসে বৃটিশ-পাকিস্তান এরশাদ খালেদা বিরোধী আন্দোলনে জনতার ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন জাতি দেখেছে এবং অংশগ্রহণ করেছে। জনতার ঐক্যের কাছে সকল অপশক্তির পরাজয় অনিবার্য। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেশপ্রেম ও উন্নয়ন জাতির কাছে স্বপ্নে পাওয়ার বিষয়,আমার মনে হয়। বিএনপি-জামাত সহ সরকার বিরোধী সকল অপশক্তিকে জনতা মোকাবেলা করছে স্বপ্নভঙ্গের কারণ যেনো না হয়। জনগণকে আন্দোলনে আনা দুরের কথা সরকার পরিবর্তনের জন্য ভোট কেন্দ্রে হাজির করতেও পারছেন না বিরোধী দল। কেনো জনগণ ভোটদানে মুখ ফিরিয়ে নিলো ? সরকার পরিবর্তন চায় না বলে ? শেখ হাসিনার উপর আস্থা আছে বলে ? অতিতের চেয়ে দেশের উন্নয়ন হচ্ছে বলে ? মানুষের জানমালের নিরাপত্তা পেয়েছেন বলে ? বিশ্বের এক নম্বর অর্থনৈতিক দেশ হিসেবে বাংলাদেশকে দেখতে চায় বলে ? অনেক বিষয় হতে পারে। জনগণের সন্তানদেরকে আন্দোলনের নামে জীবন দিতে হয়, নেতা ও নেত্রীদের সন্তানরা লণ্ডন বসে হুমকদেয়,দেওয়ার নাম রাজনীতি হতে পারে না। পৃথিবীর কোনো দেশের সরকার জনগণকে আন্দোলনে এবং নিজের বিরুদ্ধে ভোটদানে উৎসাহিত করবেন না। জনগণ সহ্য করতে না পারলেই রাজপথ, গুপ্তপথ, ভোটদানের পথ বেছে নিবেন। বিরোধীরা যদি জনগণকে সরকারের বিরুদ্ধে সঠিক তথ্য উপস্থাপন করতে পারেন,জনগণের মনের কথা বলতে পারেন,তবেই সরকার বিরোধী আন্দোলন হবে।। প্রয়োজনে অপ্রয়োজনে বিএনপি-জামাত হাজারো কর্মসুচি দিয়েছে, হরতালের নামে জ্বালাও পোড়াও ধ্বংসাত্মক অগ্নিসংযোগ গাড়ী ভাংচুর রেললাইন উপচানো ও হয়েছে।অনেক মায়ের কোল খালি করার পরেও নেতাদেরকে রাস্তায় দেখা যায় নাই। জাতি যখন বুঝতে পেরেছে, নিজেদের অধিকার বুঝে নিয়েছেন। হরতালকে প্রত্যাক্ষান করেছে। তখন আপনারা সরকারকে উল্টিয়ে দিবেন, শেখ হাসিনার সরকারের অধিনে নির্বাচন করবেন না। কখন বলে বসবেন এই সরকারের অধিনে আপনারা থাকবেনও না। আপনারা কোন দেশের সরকার চান, তাও বলছেন না। আপনাদের জন্য একটি সরকার বানিয়ে দিতে হবে ? না-কি আপনাদেরকে সরকারে বসিয়ে দিতে হবে ? জাতির কাছে পরিস্কার করুন। অতিত অভিজ্ঞতা বলে, আপনাদের সরকার একটি ফ্লাইওভার করতে পারে নাই, শেখ হাসিনার মেগাপ্রকল্প উদ্বোধন হলে আপনাদেরকে হিসেব দিতে হবে। ভয়ে কি আতংকৃত ? আপনাদের রাজনৈতিক অবস্থান কোথায় হবে ? একবার ভেবে দেখুন। শেখ হাসিনার সরকারের অধিনে নির্বাচন করবেন না, শেখ হাসিনার সরকারের কাছে নিরাপত্তার আবেদন করতে হবে জনরোষ থেকে বাচার জন্য। সেইদিন বেশী দুরে নয়। এখনি তারেক রহমানকে দেশে আসার, খালেদা জিয়ার বিদেশ যাত্রার ও সেনা নিবাসের বাড়ী ফেরতে আবেদন করেছেন, কোন সরকারের কাছে ? সবকিছু নিজেদের জন্য চাইবেন। জনগনের জন্য কি আপনাদের কাছে কিছুই চাওয়ার নাই ? জনগণ আপনাদেরকে সহ্য করতে পারবে কেনো ? আর একটা নির্বাচন প্রত্যাক্ষান করলে, অথবা প্রতিরোধ করতে না পারলে, জনগণ আপনাদেরকে কোন গুহায় নিক্ষেপ করবে, আমার ভাবতেও কষ্ট হয়।

লেখকঃ বাংলাদেশ মাংস ব্যবসায়ী সমিতির মহাসচিব ও রাজধানী মোহাম্মদপুর থানার ৩৪ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি জনাব রবিউল আলম।

শেয়ার করুন
More News Of This Category

Dairy and pen distribution

ডিজাইনঃ নাগরিক আইটি ডটকম
themesba-lates1749691102