May 19, 2024, 5:57 pm
শিরোনামঃ
শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে মৎস্যজীবী লীগের উদ্যোগে আলোচনা সভা বিচার ব্যবস্তার সুচনার ইতিহাস জানিনা, বিতর্কের শেষ কোথায় ? বুঝতে পারছি না বঙ্গ কণ্যার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন ও বাংলার মাটি কে বুকে ধারন, ইতিহাসের অংশ ব্রাহ্মণবাড়িয়া মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি পাঠাগারের কমিটি গঠন জহির সভাপতি ও লিটন সাধারণ সম্পাদক গাজায় নিজেদের গোলার আঘাতে পাঁচ ইসরায়েলি সেনা নিহত তালের শাঁস খেলে যেসব উপকার হয় ঢাকা শহরে কোনো ব্যাটারিচালিত রিকশা চলবে না: ওবায়দুল কাদের বিশ্বাস পুনর্নির্মাণের জন্য আমি বাংলাদেশ সফর করছি: ডোনাল্ড লু ভারতবর্ষে হিন্দু মুসলমানের রাজনীতি হয়,মহাত্মা গান্ধী সকল ধর্মের রাজনীতি নাই গুলিস্তান-মিরপুরের কাপড় পাকিস্তানের বলে বিক্রি করেন তনি!

বঙ্গবন্ধুর খুনিদের পৃষ্ঠপোষকতাকারী বিএনপির বিচার করতে হবে: বাহাউদ্দিন নাছিম

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট সময় : Thursday, August 12, 2021
  • 315 Time View

মোঃ ইব্রাহিম হোসেনঃ বাংলাদেশের স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা, পরবর্তীতে হত্যায় জড়িতদের পৃষ্ঠপোষকতা ও রাজনীতিতে পুর্নবাসন করার দায়ে বিএনপির বিচার দাবি করে আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক কৃষিবিদ আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম বলেছেন, বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডে জড়িত ছিলো জিয়াউর রহমান। তিনিই পরবর্তীতে খুনি ও স্বাধীনতা বিরোধীদের রাজনৈতিকভাবে লালন পালন করতে প্রতিষ্ঠা করেছিলেন বিএনপি নামক রাজনৈতিক সংগঠন। দেশের ইতিহাসের এই কলঙ্কজনক অধ্যায় মুছতে বিএনপির বিচার করতে হবে।

আজ ১২ আগস্ট ২০২১ রোজ বৃহস্পতিবার ধোলাইখালের ক্রস রোডে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের উদ্যোগে অসহায়-দুস্থ মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া।

আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম বলেন, জিয়াউর রহমান খুনিদের পৃষ্ঠপোষকতা করেছিলো, তাদেরকে প্ররোচিত করেছিলো। বঙ্গবন্ধুর খুনিরা পরবর্তীতে দেশি-বিদেশি সংবাদমাধ্যমে ঘোষণা দিয়ে বলেছিলো ‘ আমরা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছি, আমাদের বিচার করার ক্ষমতা কারও নাই। আমাদের সঙ্গে জিয়াউর রহমান আছে’। তিনি আমাদের ইনডেমনিটি দিয়েছেন। জিয়াউর রহমান ৭৫ এর খুনিদের দেশে-বিদেশে চাকরি দিয়ে, ব্যবসা-বাণিজ্য দিয়ে পুরস্কৃত করেছিলো, রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতা দিয়েছিলো। তারা ফুলেফেঁপে একটি বিশাল দানবের রুপ লাভ করেছিলো। আজকে আমাদের সেই কথা ভুলে গেলে চলবে না। জিয়াউর রহমান, ক্যান্টমেন্টের ছাউনিতে বসে বিএনপি নামক রাজনৈতিক দলের নামে আদর্শ-নীতিহীন, খুনিদের নিয়ে দল গঠন করেছিলো। খালেদা জিয়াও ৭৫ এর খুনিদের রাজনীতিতে প্রতিষ্ঠিত করেছে। খুনি ফারুক-রশিদচক্রকে নির্বাচন করার সুযোগ দিয়েছে। খুনিদের পৃষ্ঠপোষকতা করোছিলো বেগম খালেদা জিয়া ও জিয়াউর রহমানের বিএনপি।

বিএনপি সরকার বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারী ও স্বাধীনতা বিরোধীদের এমপি-মন্ত্রী বানিয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার দল বিএনপি স্বাধীনতা বিরোধীদের রাজনৈতিক আশ্রয় দিয়ে তাদেরকে এমপি বানিয়েছে, মন্ত্রী পদমর্যাদা দিয়েছে। স্বাধীনতা বিরোধীদের গাড়িতে দেশের সম্মান পতাকা তুলে দিয়েছে। এই পতাকা অর্জনে আমাদের লক্ষ লক্ষ মানুষ শহীদ হয়েছে, অসংখ্য বীরাঙ্গনা হয়েছে।

তিনি বলেন, একাত্তরেও যেমন ঘাতক দালাল ছিলো বর্তমানেও তারা আছে। ৭১ এর যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করেছে জাতির পিতার সুযোগ্য কন্যা। জামাত মানুষ হত্যাকারী, যুদ্ধাপরাধী। তারা বাংলাদেশ বিরোধী শক্তি। যুদ্ধাপরাধের সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকার কারণে জামাতের রাজনীতি আজকে নিষিদ্ধ হয়েছে। ঠিক একইভাবে ৭৫ এর খুনিদের পৃষ্ঠপোষকতা, রক্ষা, রাজনীতিতে পুর্নবাসন করার দায়ে, পুরস্কৃত করার অপরাধে বিএনপিকেও বিচার করে রাজনীতি থেকে নিষিদ্ধ করতে হবে। খুনিদের আশ্রয়দাতা, স্বাধীনতা বিরোধী সহ সকল দেশ বিরোধী শক্তিকে দলমত নির্বিশেষে রুখে দিতে সকলকে এগিয়ে আসতে হবে।

বিএনপি নামক দলটি করোনার এই সময়ও ইসলামি সংগঠনের নামে, ধর্মীয় উত্তেজনা ছড়িয়ে বাংলাদেশে অরাজকতা, অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে চায়। এরা যুদ্ধাপরাধীদের প্রশ্রয় দিয়েছে, বঙ্গবন্ধুর খুনিদের প্রশ্রয় দিয়েছে। এরা এখনও জঙ্গিদের প্রশ্রয় দেয়। জঙ্গিদের দিয়ে সন্ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করতে চেয়েছিলো। সিরিজ বোমার কান্ড ঘটিয়ে বোমাবাজের দেশে পরিণত করেছিলো। তারা ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা করেছিলো। এই অপরাধীরা এখনও বাংলাদেশ বিরোধী অপরাধের সঙ্গে জড়িত।

তিনি বলেন, বাঙ্গালি, অবাঙ্গালি, চাকমা, মারমা, পাহাড়ি নৃগোষ্ঠী সকলে মিলে একটি সোনার বাংলা গঠনের স্বপ্ন দেখেছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারকে হত্যার মাধ্যমে তার স্বপ্নকে খুনিরা মুছে দিতে চেয়েছে। সেই সকল খুনিদের নেতৃত্ব দিয়েছিলো জিয়া। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর তারাই দেশের ক্ষমতা দখল করে দেশের স্বাধীনতাকে হত্যা করতে চেয়েছিলো। কিন্তু তারা সফল হয়নি।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ড বাংলার ইতিহাসে একটি ন্যাক্কার জনক ঘটনা। ভাগ্যক্রমে বেঁচে গিয়েছিলেন শেখ হাসিনা, তিনি আছেন বলেই আমরা এই বৈশ্বিক করোনা ভাইরাসকে মোকাবেলা করতে পারছি।মাননীয় প্রাধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন করোনা ভাইরাসের ভ্যাক্সিন দেশের মানুষকে দিতে যতটাকা প্রয়োজন হোক তা বাংলাদেশের মানুষকে দেওয়া হবে।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ মন্নাফির সভাপতিত্বে এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক এফ এম শরিফুল ইসলামের আয়োজনে ও সঞ্চালনায় ত্রাণ বিতরণ অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ ২ আসেনর সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম বাবু, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি সাজেদা বেগম, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক শেখ মোহাম্মদ আজহার, দপ্তর সম্পাদক রিয়াজ উদ্দিন রিয়াজ, প্রচার সম্পাদক চৌধুরী সাইফুন নবী সাগর, সাংস্কৃতিক সম্পাদক আব্দুল মতিন ভূইয়া, সদস্য মহায়মেন বয়ান, সিরাজুম মনি টিপ প্রমুখ, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি কামরুল হাসান রিপন সহ থানা ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ।

শেয়ার করুন
More News Of This Category

Dairy and pen distribution

ডিজাইনঃ নাগরিক আইটি ডটকম
themesba-lates1749691102