April 18, 2024, 10:41 am
শিরোনামঃ
শুধু প্রশাসন দিয়ে মাদক ও কিশোর গাং প্রতিরোধ করা সম্ভব নয় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে ব্যর্থ হলে ? গুচ্ছভুক্ত ২৪ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা ভন্ড কবিরাজ বলেন তিনমাথা,জ্বীন দিয়ে ও গোখরা সাপের কামড় দিয়ে শেষ করে দিব জানা গেল কোরবানি ঈদের সম্ভাব্য তারিখ বাংলা ও বাঙ্গালীর নববর্ষঃ আঃ রহমান শাহ ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানালেন কৃষক লীগ নেতা মোঃ হালিম খান পদ্মা সেতুতে একদিনে সর্বোচ্চ টোল আদায়ের রেকর্ড জাহাজেই ঈদুল ফিতরের নামাজ আদায় করলেন জিম্মি নাবিকরা পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছে আলহাজ্ব লায়ন মোঃ দেলোয়ার হোসেন

ঝিনাইদহ-৪ আসনে কে এই মনোনয়ন প্রত্যাশী গোলাম কিবরিয়া অনু

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট সময় : Sunday, October 29, 2023
  • 153 Time View

মোঃ ইব্রাহিম হোসেনঃ নাম গোলাম কিবরিয়া অনু। এলাকার তৃণমুল মানুষের কাছে একজন পরোপকারী দানশীল ও সৎ রাজনীতিবিদ হিসেবে পরিচিত। পিতাঃ এতদঅঞ্চলের মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ও বীর মুক্তিযোদ্ধা আলী হাসান হাসু মিয়া। মাতাঃ রাশিদা বেগম (মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক) গ্রামঃ নারিকেল বাড়ীয়া। পোস্টঃ রবি নারিকেল বাড়ীয়া। উপজেলা ও জেলাঃ ঝিনাইদহ। কালিগঞ্জ উপজেলা এবং ঝিনাইদহ সদর উপজেলার নলডাঙ্গা, ঘোড়াশাল, ফুরসুন্দি ও মহারাজপুর ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত ঝিনাইদহ-৪  আসন। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঝিনাইদহ-৪ আসনের নৌকা প্রতীকের মনোনয়ন প্রত্যাশী আশির দশকের ছাত্রলীগ নেতা,  ঝিনাইদহ-৪ আসনের ঘোড়াশাল ইউনিয়নের নারিকেল বাড়ীয়া গ্রামের আলী হাসান হাসু মিয়ার কৃতি সন্তান, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের অন্যতম সংগঠক, আন্তর্জাতিক ভাবে স্বীকৃত, অন্যতম লবিং সংগঠন আমেরিকা বাংলাদেশ কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট ইনিশিয়েটিভ (এবিসিডিআই) এর প্রতিষ্ঠাতা সাধারন সম্পাদক, ১/১১ এ জননেত্রী শেখ হাসিনার মুক্তি আন্দোলনের  এবং বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ্যে গুরুত্বপূর্ণ লবিংএ বলিষ্ঠ ভূমিকা পালনকারী রাজপথের লড়াকু সৈনিক, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার আস্থাভাজন নেতা, জনাব গোলাম কিবরিয়া অনু।

গোলাম কিবরিয়া অনুকে ঘিরে নেতাকর্মীরা আজ উজ্জীবিত। আন্দোলন সংগ্রামে আশির দশকের রাজপথের লড়াকু সৈনিক হিসেবে তিনি পরিচিত। আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের হাইকমান্ড তাকেই মনোনীত করবে বলে আশাবাদী তিনি ও তার সমর্থকরা।

জাতীয় নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পেতে নেতাদের তদবিরসহ ভোটারদের সমর্থন আদায়ে সম্ভাব্য প্রার্থীরা মাঠে নেমেছেন। আর ওই সম্ভাব্য প্রার্থীদের একজন গোলাম কিবরিয়া অনু। তিনি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকে দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার ব্যাপারে আশাবাদী।

স্বাধীন বাংলাদেশের মহান স্থপতি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি বাংলার রাখাল রাজা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে বিশ্বাসী ও গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার সুদৃঢ় নেতৃত্বের প্রতি পূর্ণ আস্থাশীল গোলাম কিবরিয়া অনু। ইতিমধ্যেই তার নির্বাচনী এলাকার বিভিন্ন ইউনিয়ন, হাট-বাজার, পাড়া মহল্লায়  স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও আওয়ামী লীগের অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে প্রতিনিয়ত আওয়ামী লীগ সরকারের নানা রকম উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড সাধারণ মানুষের মাঝে তুলে ধরে প্রচার গণসংযোগে ব্যস্ত সময় পার করছেন তিনি।

গোলাম কিবরিয়া অনু বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাকে ডিজিটাল বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তোলার পর এখন স্মার্ট বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তুলতে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা। আজ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর কন্যা রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত আছেন বিধায় দেশের টাকায় পদ্মাসেতু নির্মাণ করা সম্ভব হয়েছে। মেট্রোরেল, কর্ণফুলী ট্যানেল, রুপপুর বিদ্যুৎ কেন্দ্র, পায়রা সমুদ্র বন্দরসহ আরও অনেক মেগাপ্রকপ্ল বাস্তবায়ন করা দেশরত্ন শেখ হাসিনার সুদৃঢ় নেতৃত্বের কারনেই সম্ভব হচ্ছে। বিগত বিএনপি-জামাত জোট সরকারের আমলে দূর্নীতিতে পাঁচ-পাঁচবার চ্যাম্পিয়ন হওয়া দেশটিকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা বিশ্বের বুকে মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে পরিচিত ঘটিয়েছেন। বিশ্বের অনেক দেশ এখন বাংলাদেশকে রোল মডেল হিসেবে নিয়েছেন।

তিনি আরো বলেন, বর্তমানে আওয়ামী লীগ সরকার রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় থাকায় মানুষ এখন বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, মাতৃত্বকালিন ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা, মুক্তিযোদ্ধা ভাতা, বিনামূল্যে বই বিতরণ, উপবৃত্তি প্রদান, মাতৃত্বকালীন ছুটি বৃদ্ধি, যুবকদের কর্মসংস্থান, দারিদ্রতার হার নিম্ন পর্যায়সহ নানা সেবামূলক কার্যক্রম মানুষের জন্য প্রতিষ্ঠিত করেছেন যা বিগত কোন সরকারের সময় হয়নি। আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আছেন বলেই এদেশে যুদ্ধাপরাধী রাজাকারের বিচার ও বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের বিচার করা সম্ভব হয়েছে।  মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সুদৃঢ় নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের মহাসড়কে আর এই উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সরকারকেই নৌকায় ভোট দিয়ে ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত করতে হবে।

গোলাম কিবরিয়া অনু বলেন, ১৯৭৫ সালে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা যখন দিশেহারা তখন আমি গোলাম কিবরিয়া অনু সহ তিনজন নিভৃতে রাতের অন্ধকারে ২১ ফেব্রুয়ারিতে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের লক্ষ্যে ছাত্রলীগের পক্ষ্যে শহীদ মিনারে পুস্পস্তবক অর্পণ করি।

১৯৭৫ সালের ২৮ শে নভেম্বর জিয়াউর রহমানের মিলিটারি ক্যাপ্টেন ঝিনাইদহ সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে থেকে আমি সহ চারজন ছাত্রকে গ্রেপ্তার করে নিয়ে যায় এবং আমাদেরকে মানসিক ও শারীরিকভাবে নির্যাতন করে আর বলে যে মুজিববাদি করস। ওই ক্যাপ্টেন ওসি হামিদ সাহেবের কাছে আমাদেরকে হস্তান্তর করে ক্যাম্পে চলে যান।

১৯৭৬ সালে ১৫ই আগস্ট কাঙ্গালী ভোজ ও দোয়া মাহফিলের ব্যবস্থা গ্রহন করি। আমার নেতৃত্বে সেদিন ১৭ জন ছাত্র সংগঠিত করে ১৫ই আগস্ট জাতীর জনক বঙ্গবন্ধুর প্রথম শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে কাঙ্গালী ভোজের জন্য এক মুষ্টি করে সাড়ে চার মন চাল সংগ্রহ করে ১৪ নম্বর ঘোড়াশাল ইউনিয়নের মুনুড়িয়া গ্রামে কাঙ্গালী ভোজ ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন সম্পন্ন করি।

১৯৭৯ সালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে রাজাকার ভিসি বারীকে প্রত্যাহার করে নেয়ার জন্য আন্দোলনে সক্রিয় ভূমিকা পালন করি। যে আন্দোলন বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথম রাজাকার বিরোধী আন্দোলন হিসেবে পরিচিত।

১৯৮১ সালের ১৭ই মে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার আগমন উপলক্ষে বৃষ্টি ভেজা দিনে বঙ্গবন্ধুর ৩২ নম্বর বাসায় জনতার কাফেলায় অংশগ্রহণ করি। জননেত্রী শেখ হাসিনা ঝিনাইদহে প্রথম আগমন উপলক্ষে বারো বাজার থেকে রিসিপ করি ঝিনাইদহ আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি এডভোকেট জনাব আয়ুব হোসেন ও আমি।

১৯৮১ সালের অক্টোবর মাসে ইসলামী ছাত্র শিবিরের রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আক্রমণ প্রতিহত করার অন্যতম সৈনিকের দায়িত্ব পালন করি। ১৯৮২ সাল থেকে ১৯৮৮ সাল পর্যন্ত স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনের অগ্রনী ভূমিকা পালন করি।

১৯৮৯ সালে জীবিকার তাগিদে সুদূর আমেরিকায় পাড়ি জমাতে বাধ্য হই। দীর্ঘ ৩৪ বছর দায়িত্ববোধের হাল বহন করেছি কিনতু এক মুহূর্তের জন্য ওই দেশে মন বসাতে পারি নাই তাই যখন সন্তানদয় স্বাবলম্বী হয়েছে তখন আওয়ামী পরিবারের তৃণমূল নেতা কর্মীদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছি।

সরেজমিনে ঝিনাইদহ-৪  আসনের নলডাঙ্গা, ঘোড়াশাল, ফুরসুন্দি ও মহারাজপুর ইউনিয়নে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গোলাম কিবরিয়া অনু দলের পরীক্ষিত ও ত্যাগী নেতা। তিনি দলের দূ:সময়ে তার ভূমিকা ছিল সর্বাগ্রে। আন্দোলন, সংগ্রামে রাজপথের এই ত্যাগী নেতাকে আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনে দলীয় মনোনায়ন প্রদান করা হলে দলের কার্যক্রম আরো বেগবান হবে এবং দল মত নির্বিশেষে সকলে ঐক্যবদ্ধভাবে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে তাঁকে জয়যুক্ত করবেন।

ঝিনাইদহ-৪ আসনে নৌকা প্রতীকের মনোনয়ন প্রত্যাশী হওয়ার ব্যাপারে জানতে চাইলে, গোলাম কিবরিয়া অনু বলেন, দীর্ঘদিন ও দূ:সময়ে আওয়ামী রাজনীতির সাথে জড়িত আছি। কখনো নির্বাচনে প্রার্থী হতে চাইনি। এবার তৃণমূল নেতা-কর্মীদের অনুরোধে নৌকার মাঝি হতে মাঠে নেমেছি। আমি এলাকার উন্নয়ন ও মানুষের জন্য কাজ করতে চাই। দল আমাকে মনোনয়ন দেবে বলে আশা করছি। জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু জয়তু শেখ হাসিনা।

শেয়ার করুন
More News Of This Category

Dairy and pen distribution

ডিজাইনঃ নাগরিক আইটি ডটকম
themesba-lates1749691102