বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ০১:১৭ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
ঝিনাইদহে ইউপি চেয়ারম্যান কর্তৃক সাংবাদিক লাঞ্ছিত ও বেঁধে রাখার হুমকি।। ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে নিন্দা জানিয়ে অসংখ্য সাংবাদিক। কোরবানীর কাঁচা চামড়ার মুল্য নির্ধারণ, বানিজ্য মন্ত্রনালয়কে নিয়ে চলছে রং তামাশা শিক্ষক হত্যা ও জুতার মালা এখন বাঙালি জাতিকে বহন করতে হচ্ছে পদ্মা সেতু হয়ে টুঙ্গিপাড়া গেলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনা শ্রদ্ধা মন খুলে দে,ও তুই হেলা করিস না, গোপালগঞ্জে যাবরে ভাই মোটরসাইকেল নিয়া ৩৩ নম্বর ওয়ার্ডে মান্নান হোসেন শাহীন সভাপতি, শেখ মোঃ জহিরুল ইসলাম অপু সাধারণ সম্পাদক ৩২ নং ওয়ার্ডে মোঃ বেলাল আহমেদ সভাপতি, মোঃ আবুল বাশার সাধারণ সম্পাদক ৩১ নং ওয়ার্ডে শহীদ আলী সভাপতি, সাজেদুল হক খান রনি সাধারণ সম্পাদক গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে শিগগিরই আর একটি গণঅভ্যুত্থান হবে: আমান উল্লাহ আমান

ঝিনাইদহে ২টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের স্বতন্ত্র প্রার্থীদের জয়, নৌকা প্রতিকের পরাজয়

রিপোর্টারের নাম:
  • আপডেট টাইম বৃহস্পতিবার, ১৬ জুন, ২০২২
  • ১১৫ দেখা হয়েছে

এস কে কাদের, ঝিনাইদহ :

প্রায় একযুগ পর ঝিনাইদহ সদর উপজেলার পাগলাকানাই ও সুরাট ইউনিয়নের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে । বুধবার উৎসবমুখর পরিবেশে এই প্রথম জেলার দুইটি ইউনিয়নে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে। ভোট গণনা শেষে ফলাফল ঘোষণার অপেক্ষায় দুই ইউনিয়নবাসি। বুধবার সকাল ৮টা থেকে ৪টা পর্যন্ত ইভিএমের মাধ্যমে ভোটগ্রহণ করা হয়। কোন অঘট ছাড়াই শান্তিপূর্ণভাবেই শেষ হয়েছে ভোটগ্রহণ। তবে ইভিএমের কারণে ভোটগ্রহণে ধীরগতির অভিযোগ ছিল ভোটারদের। এতে করে ভোট উৎসবে কিছুটা ভাটা পড়ে। দুই ইউনিয়নে ১৯টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহন করা হয়। এরমধ্যে সুরাট ইউনিয়নে ৯টি ও পাগলাকানাই ইউনিয়নে ১০টি কেন্দ্র স্থাপন করা হয়। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত পাগলাকানাই ইউনিয়নে মটরসাইকেল প্রতিক নিয়ে আবু সাঈদ বিশ্বাস ৪২৬০ ভোট বেশী পেয়ে ও সুরাট ইউনিয়নে আশরাফুল ইসলাম আনারস প্রতিক নিয়ে ১৭৩ ভোট বেশী পেয়ে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

উল্লেখ্য সুরাটের বর্তমান চেয়ারম্যান কবির হোসেন জোয়ার্দার কেবি ও পাগলাকানাই ইউনিয়নে আতাউর রহমান আতা নৌকা প্রতিক নিয়ে প্রতিদ্বন্দীতা করেন। তাদের প্রতিদ্বন্দী প্রার্থীরাও আওয়ামীলীগের বিভিন্ন পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন। কিন্তু বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ায় তাদের দল থেকে বহিস্কার করা হয়। এদিকে দল থেকে বহিস্কার করা হলেও দলের কতিপয় নেতা কর্মী নৌকার পক্ষে প্রচার প্রচারণা না চালিয়ে বিদ্রোহী প্রার্থীদের পক্ষে ভোট করেন বলে অভিযোগ। এতে করে নৌকার ভরাডুবি
দলীয় নেতাদের কারণেই ঘটেছে বলে প্রার্থীরা অভিযোগ উঠেছে।

শেয়ার করুন

এই ধরনের আরও খবর...

Dairy and pen distribution

themesba-lates1749691102